BanshkhaliTimes

অর্থনৈতিক সম্ভাবনার উর্বর দিগন্ত বাঁশখালীর পান শিল্প

BanshkhaliTimes

মুহাম্মদ আরিফ, বাঁশখালী টাইমস: অবারিত সম্ভাবনার সম্ভার, প্রকৃতি ও উর্বরতার আর্শীবাদপুষ্ট জনপদ বাঁশখালী। কৃষি পণ্যের মধ্যে বাঁশখালীর পানের গান ইতোমধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে দেশের আনাচে কানাচে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পানের ব্যাপক চাষাবাদ লক্ষণীয়ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে বিশেষ করে রাজশাহী, মহেশখালী এবং বাঁশখালীতে।
সরেজমিনে দেখা যায় বাঁশখালীর পাহাড়ী এলাকা জুড়ে বিস্তৃর্ণভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্য পানের বরজ। ভূ-প্রকৃতিগতভাবে বাঁশখালী এক রোমাঞ্চকর উপজেলার নাম। পূর্বে পাহাড় আর পশ্চিমে সাগর এবং চট্টগ্রাম শহরের সাথে যাতায়াত সুবিধা ভালো থাকায় একরকম সম্ভাবনার দ্ধার বলা চলে।

৩৯২ বর্গ কিলোমিটার বিস্তৃত বাঁশখালী জনপদ লবণ, মৎস্য চাষ, পান চাষ, শাক-সবজি, তরকারি ও কৃষিজ নানা পণ্য উৎপাদনের জন্য দারুণভাবে উপযোগী।

বর্তমান সময়ে কৃষকরা পান চাষে বেশ সফলতা পাচ্ছেন বাঁশখালীর পানচাষীরা। বাঁশখালীর পাহাড়ী অঞ্চল বিশেষ করে পুইছড়ি ইউনিয়নের নাপোড়া, চাম্বল, শীলকূপ, ইকোপার্ক এলাকা, জঙ্গল জ্বলদী, পূর্ব বৈলছড়ী, কালীপুর, সাধনপুর এবং পুকুরিয়ায় ব্যাপক হারে পান চাষাবাদ হচ্ছে এবং ভালো ফলনও হচ্ছে বলে জানান চাষীরা। পানের দাম অনেকটা মৌসুমভিত্তিক হয়ে থাকে। সাধারণত বর্ষার শেষের দিকে পানের চড়া দাম থাকে এবং শীতের শেষ ভাগে ও বর্ষার শুরুতে দাম কম থাকে। এ সময় কৃষকের জীবনযাত্রায় ছন্দপতন হলে মৌসুম এলে ভালো ফলনে তাদের সেই গ্লানি কেটে যায়।

বাঁশখালীর উত্তর জলদীর আব্দুল আজিজ একজন সফল পান চাষী, দীর্ঘদিন প্রবাসে থেকে তেমন সুবিধা করতে না পেরে ফিরে আসেন নিজ জন্মভূমিতে। দীর্ঘ সময় বেকার থাকার পর মাথায় আসে পান চাষ করার চিন্তা। পার্শ্ববর্তী চাষীদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে প্রায় ১ কানি ৩ গন্ডা জমির উপর পানের চাষাবাদ করেন।

চাষী আব্দুল আজিজ জানান, প্রায় ২লক্ষ টাকা ব্যয় করে গড়ে তুলেন এই বরজ, আরও জানান পানের ভালো ফলন হওয়ায় সে অত্যন্ত আনন্দিত, আশাবাদী যে এই মৌসুমে প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকার মুনাফা অর্জন সম্ভব হবে।

আব্দুল আজিজের মতো আরও অনেক পান চাষীর সাথে কথা বলে জানা যায়- পানের বাম্পার ফলন ও উচ্ছ্বাসের কথা। তবে বর্তমানে পানের বাজার দর এখনো কমতি থাকায় দুশ্চিন্তা বিরাজ করছে।

পূর্ব বৈলছড়ীর পান চাষী নুরুল আবছার জানান, সে নিজের ক্ষেত থেকে উৎপাদিত পানের পাশাপাশি বৈলছড়ী বাজার থেকে আরও পান সংগ্রহ করে চট্টগ্রাম শহরে বিক্রি করেন, সে জানায় বর্তমান পানের বাজার বেশ নাজুক চাহিদাও কম বলে জানান। এই বিষয়ে কথা হয় বাঁশখালীর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু সালেকের সাথে, তিনি বলেন ‘বাঁশখালীতে এখন প্রায় ২৫০ হেক্টরের বেশি জমিতে পানের চাষবাদ হচ্ছে যা বিগত বছরের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছ, ভালো ফলনও হয়েছে। পানের বর্তমান বাজার দর কম থাকার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে সে জানান, বিশ্বব্যাপি করোনা ভাইরাস এক অর্থনৈতিক মন্দার মুখে পতিত করেছে, যার একটা প্রভাব কৃষি পণ্যেও পড়েছে পানও তার ব্যতিক্রম নয়। তবে পানের দাম বৃদ্ধি পেলে বাঁশখালীতে কৃষকরা ব্যাপক লাভবান হবেন।’

এই কর্মকর্তা আরও জানান পান চাষ বিস্তৃত করার জন্য তাদের পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে এবং নিয়মিত সেবা এবং পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। বাঁশখালীতে সাধারণত সপ্তাহে দুদিন পানের বাজার হয়, এই বাজার থেকে পান সংগ্রহ করে পান ব্যাবসায়ীরা স্থানীয় চাহিদা মিটানোর পাশাপাশি চট্টগ্রাম শহরে পান বাজারজাত করছেন, যেখান থেকে পাইকারী ব্যাবসায়ীরা পান সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি করেন। বাঁশখালী সাধারণত সপ্তাহে দুদিন বাজার হলেও একই দিনে সব স্থানে হয়না। স্থান ভেদে দিনের ভিন্নতা থাকলেও সপ্তাহে দুইদিনেই বাজার হয়। এসব বাজার বসে গভীর রাতে। সরেজমিনে বৈলছড়ী বাজার পরিদর্শনে দেখা যায় রাত ৩ টার সময়েও ক্রেতা বিক্রেতায় মুখর থাকার দৃশ্য।

বাঁশখালীর পান শিল্পকে এগিয়ে নিতে পানচাষীদের পৃষ্ঠপোষকতা ও সরকারি সহযোগিতার বিকল্প নেই বলে অভিমত বিশিষ্টজনদের।

উল্লেখ্য, পান আবহমানকাল ধরে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের কাছে জনপ্রিয়। সবুজ উদ্ভিদ শ্রেণির পান সংস্কৃত শব্দ পরান থেকে নির্গত যার বাংলা অর্থ ‘পাতা’। পান পাতা দেখতে গোলাকার। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া বিশেষ করে তাইওয়ান এবং ভারতীয় উপমহাদেশে ব্যাপক হারে পানের চাষ হয়। পান পূজাপার্বণ থেকে শুরু করে ঔষধি তৈরিতেও পানের ব্যবহার লক্ষণীয়।
বাংলাদেশ এবং ভারতীয় উপমহাদেশ জুড়ে নানা ধরণের পানের চাষ হচ্ছে। হরেক রকম পানের মধ্যে বাংলা পান, সাঁচি পান, মিঠা পান, গোলাপ পান, জর্দা পান, কহিনূর পান এবং বেনারশি পান উল্লেখযোগ্য। ভিন্ন জাতের পানের ভিন্ন গুণ। পান সাধারণত ক্ষার এবং লবনাক্ত। মাটি ব্যতিত যথাসম্ভব উঁচু স্থানে দোঁয়াশ এবং এটেল-দোয়াশ মাটিতে ভালো জন্মে তার সুবাদে বাংলাদেশে ভূ-প্রকৃতিগত অনুকুল্য পরিবেশ বিরাজমান থাকায় ব্যাপকহারে পান চাষ হচ্ছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top