ছান্দসিক ফুটবলের শিল্পী- নেইমার Jr.

নেইমার দা সিল্ভা স্যান্তোস জুনিয়র (পর্তুগিজ উচ্চারণ: [nejˈmaʁ dɐ ˈsiwvɐ ˈsɐ̃tuj ˈʒũɲoʁ]; জন্ম ৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯২), সাধারণত নেইমার নামে পরিচিত, একজন ব্রাজিলীয় পেশাদার ফুটবলার, যিনি ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন এবং ব্রাজিল জাতীয় দলের হয়ে একজন ফরোয়ার্ড বা উইঙ্গার হিসেবে খেলেন। তাঁকে আধুনিক বিশ্বের উদীয়মান ফুটবলারদের মধ্যে অন্যতম মনে করা হয়। নেইমার ১৯ বছর বয়সে ২০১১ এবং ২০১২ সালে দক্ষিণ আমেরিকার বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হন।[১] ২০১১ সালে নেইমার ফিফা ব্যালন ডি’অরের জন্য মনোনয়ন পান, তবে ১০ম স্থানে আসেন। তিনি ফিফা পুরষ্কারও অর্জন করেন।[২] তিনি সর্বাধিক পরিচিত তাঁর ত্বরণ, গতি, বল কাটানো, সম্পূর্ণতা এবং উভয় পায়ের ক্ষমতার জন্য। তাঁর খেলার ধরন তাকে এনে দিয়েছে সমালোচকদের প্রশংসা, সাথে প্রচুর ভক্ত, মিডিয়া এবং সাবেক ব্রাজিলীয় ফুটবলার পেলের সঙ্গে তুলনা। পেলে নেইমার সম্পর্কে বলেন, “একজন অসাধারণ খেলোয়াড়।” অন্যদিকে রোনালদিনহো বলেন, “নেইমার হবে বিশ্বসেরা।”[৩][৪][৫]২০১৫ সালের ফিফা ব্যালন ডি অরের জন্য তিনজনের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা পান নেইমার, যেখানে তিনি মেসি ও রোনালদোর পরে তৃতীয় হন। নেইমার সান্তসে (ব্রাজিলীয় ক্লাব) যোগ দেন ২০০৩-এ। বিভিন্ন মর্যাদাক্রম অতিক্রম করে তিনি মূলদলে নিজের যায়গা করে নেন। তিনি সান্তসের হয়ে প্রথম আবির্ভাব করেন ২০০৯ সালে। ২০০৯ সালে তিনি কম্পেনাতো পুলিস্তার শ্রেষ্ঠ যুবা খেলোয়ার নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে সান্তসের ২০১০ কম্পেনাতো পুলিস্তা জয়, নেইমারের শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়া এবং ২০১০ কোপা দো ব্রাজিলে ১১ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা পুরষ্কার পান। তিনি ২০১০ সাল শেষ করেন ৬০ খেলায় ৪২ গোল করার মাধ্যমে। নেইমার ব্রাজিল অনূর্ধ্ব ১৭, অনূর্ধ্ব ২০ এবং ব্রাজিল মূল দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন।

নেইমার
20180610 FIFA Friendly Match Austria vs. Brazil Neymar 850 1705.jpg
২০১৬-এ ব্রাজিল জাতীয় ফুটবল দলের হয়ে খেলছেন নেইমার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম
নেইমার দা সিল্ভা স্যান্তোস জুনিয়র
জন্ম
৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯২ (বয়স ২৬)
জন্ম স্থান
মগি দাস ক্রুজেস, ব্রাজিল
উচ্চতা
১.৭৪ মি (৫ ফু ৮ ১⁄২ ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান
ফরোয়ার্ড / উইঙ্গার
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান ক্লাব
প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন
জার্সি নম্বর
১০
যুব পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন
১৯৯৯–২০০৩
পর্তুগিজা স্যান্তিস্তা
২০০৩–২০০৯
স্যান্তোস
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর
দল
উপস্থিতি†
(গোল)†
২০০৯–২০১৩
স্যান্তোস
১০৩
(৫৪)
২০১৩–২০১৭
বার্সেলোনা
১২৩
(৬৮)
২০১৭-
প্যারিস সেইন্ট জার্মেইন
২০
(১৯)
জাতীয় দল‡
২০০৯
ব্রাজিল অনূর্ধ্ব ১৭

(১)
২০১১
ব্রাজিল অনূর্ধ্ব ২০

(৯)
২০১২
ব্রাজিল অনূর্ধ্ব ২৩
১৪
(৮)
২০১০–
ব্রাজিল
৮৯
(৫৭)
সম্মাননা
ব্রাজিল-এর প্রতিনিধিত্বকারী
পুরুষদের ফুটবল
রৌপ্য পদক – দ্বিতীয় স্থান ২০১২ লন্ডন দলীয় প্রতিযোগিতা
স্বর্ণ পদক – প্রথম স্থান ২০১৩ ফিফা কনফেডারেশন্স কাপ ফিফা কনফেডারেশন্স কাপ
পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে এবং ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।
† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

‡ জাতীয় দলের হয়ে খেলার সংখ্যা এবং গোল ০২ জুলাই ২০১৮ তারিখ অনুযায়ী সঠিক।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.