খানখানাবাদে জমি বিরোধের জের ধরে হামলা, আহত ৭

মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের: বাঁশখালী উপজেলার উপকূলীয় ৩নং খানখানাবাদ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড জেলে পাড়ায় গতকাল ৫ জানুয়ারী রাত ৮ টার সময় নিরঞ্জন জগদাশ (৯৫) এর বাড়ীতে এবং পুণরায় আজ শনিবার ভোর ৬টার সময় পুলিন জগদাশ (৮০) বাড়িতে নির্যাতন ও হামলার ঘটনা ঘটে। এতে কমপক্ষে প্রায় ৭ জন আহত হয় বলে জানা যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ দিন যাবৎ বাহারছড়া ইউনিয়নের স্থানীয় মোঃ রফিক ও সেলিমের সাথে দীর্ঘদিন ধরে জায়গা জমি নিয়ে নিরঞ্জন জগদাশ ও পুলিন জগদাশের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। তা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মামলাও হয়। এরই ধারাবাহাকিতায় বিজ্ঞ আদালতের রায়ের অপেক্ষা না করে বরং আদালতকে অবমাননা করে গতকাল রাত ৮ টার দিকে একদল দুর্বৃত্তের নেতৃত্বে জেলে পাড়ায় লোহার রড, কিরিচ ও লাঠি-সোডা নিয়ে নিরঞ্জন জলদাশ এর বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুরসহ পরিবারের সকলকে উপর্যপুরি আঘাত করে।
এ সময় জেলে পল্লীর মানুষরা বাধা দিলে পুণরায় সংগঠিত হয়ে শনিবার সকালে ২য় দফা হামলা ও লুটপাট চালায়। ভূমি দস্যুদের হামলা ও লুটপাটে ঘরবাড়ি তছনছ হয়ে যায়। এ সময় পরিবারের সদস্যরা বাধা দিতে গেলে তাদের উপর ও এলোপাথাড়ি হামলা চালায় তারা। হামলায় বসত ঘরের মহিলা সদস্যসহ প্রায় ৭ জন হয়।
আহতদের মধ্যে প্রদীপ বালা জলদাস (৪৫), রবা জলদাস (৩৫), সুনীল জলদাস (৫৫), সুভাষ জলদাস (৩৫) ও সুভ্রত জলদাস (১৯) কে বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে বাঁশখালী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন, খানখানাবাদ জেলে পাড়ায় হামলার খবর পাওয়া মাত্র দ্রুত ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। কিসের কারণে জেলে পাড়ায় হামলার ঘটনা ঘটেছে তা রহস্য উদঘাটনে পুলিশের বিশেষ টিম মাঠে রয়েছে। তাছাড়া হামলার সাথে সম্পৃক্ত সকলকে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলেও তিনি জানান।

এ নিয়ে ফনিন্দ্র জলদাশ বাদী হয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়। এ ঘটনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.