জামিনে বের হয়েই সরলে গুলিবিদ্ধ, আহত ৫

মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের, বাঁশখালী থেকে

বাঁশখালীতে গেল ইউপি নির্বাচনে মেম্বার পদে হেরে যাওয়া ও জায়গা জমিসহ পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বর্তমান মেম্বার জামাল ও আমিন উল্লাহ গ্রুপের মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলিতে অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন।বিগত নির্বাচনে হেরে যাওয়া ও বিভিন্ন সময় মারামারি ঘটনায় জয়ীপ্রার্থী একে একে ৪ বার নির্বাচিত বর্তমান মেম্বার জামাল উদ্দীন বাদী হয়ে বিগত জি, আর মামলা নংঃ-১৯৭/১৭ ইং এবং বাঁশখালী থানা মামলা নং ২৫ তাং-১৫/০৬/২০১৭ ইং ২০ জনকে আসামী করে মামলা করিলে  গতকাল ১৯ জুন ২০১৭ ইং (সোমবার) আসামীরা বাঁশখালীর সিনিয়র জুড়িশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে আত্মসমর্পণ করলে অাদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। জামিনে মুক্তি পেয়ে সন্ধ্যায় তারা নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে সরল ইউপির জালিয়াখালী নতুন বাজার এলাকার গোদার পাড়স্থ আব্দুস ছবুরের চা-য়ের দোকানে ইফতার করার জন্য একত্রে ৫ জন জড়ো হয়ে ইফতারের আয়োজন কালে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা বাদী পক্ষের লোকজন তাদের উপর হামলা করে। এতে এক পক্ষ আরেক পক্ষের উপর ব্যাপক গোলাগুলি কালে আমিন উল্লাহ গ্রুপের(আসামী) পক্ষের  অনন্ত ৫ জন আহত হয়েছেন।আহতদের মধ্যে আমান উল্লাহ(৫০), মোহাঃ মোস্তাক আহমদ(৩০) ,আব্দুল করিম (৫৫), আনছার উল্লাহ(৪৫), মোহাঃ নুরুল কাদের (৩৪) সর্ব সাং কাহারঘোনা সরলকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আমিন উল্লাহ গ্রুপের  আব্দুল মান্নান জানান, আমাদের লোকজনকে বর্তমান মেম্বার জামাল মিথ্যা মামলা দিয়েছে, সেই মামলায় আমাদের  সকল আসামী জামিনে মুক্তি পেয়ে সন্ধ্যায় ইফতার করার পূর্বে বর্তমান মেম্বার জামাল ও তার দুই পুত্র ফখরুদ্দীন, নাছির উদ্দীনের নেতৃত্বে আমাদের লোকজনের উপর হামলা করে, এতে আমাদের ৭ জন লোক আহত হয়। এর মধ্যে ৫ জনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বাঁশখালী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

অন্য দিকে বর্তমান মেম্বার জামাল উদ্দীন বলেন, জামিনে মুক্তি পেয়ে এসে তারা নিজেদের মধ্যে নিজেরা মারামারি করে এখন  আমাকে দোষারোপ করছে। আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না, ঘটনার সময় আমি বাঁশখালী উপজেলা সদরে অবস্থান করেছিলাম। আমার দুই পুত্র ফখরুদ্দীন ও নাছির উদ্দীন তারা উক্ত ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত নয়। এগুলো মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আমার মান ইজ্জতকে সমাজে হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা এবং আমাকে মামলায় ফাঁসানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে।তারা আমার জনপ্রিয়তাকে নষ্ট করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। আমার জনপ্রিয়তা এবং এলাকার মানুষের ভালোবাসা আছে বিধায় আমি একে একে টানা ৪ বার ইউপি সদস্য হয়েছি। এটি আমার বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র। এ ঘটনার অজুহাতে তারা রাত ১২ দিকে আমার বাড়িতে ব্যাপক গুলিবর্ষণ করে।

বাঁশখালী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর হোসেন জানান, সংবাদ পাওয়া মাত্র পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তদন্ত করে তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে। এখনো পর্যন্ত কোনো ধরনের অভিযোগ আমার হাতে আসেনি।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.