মোবাইলকে দ্রুত করার উপায়

মোবাইলকে দ্রুত করার উপায়

Table of Contents

১।  আপনি যে অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করেন তা রাখুন, বাকিগুলো ফেলে দিন :

মোবাইলকে দ্রুত করার উপায়

আমাদের স্মার্টফোনের অভ্যন্তরে থাকা বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনগুলি সারাক্ষণ চলতে থাকে এবং কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য ইন্টারনেটে সংযুক্ত হওয়ার প্রয়োজন পড়ে ।  যদি এই অ্যাপ্লিকেশনগুলি আমাদের দরকারে না লাগে তাহলে এগুলো রিমুভ করে দেয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। এগুলো কেবলমাত্র হার্ডওয়ারের উপর চাপ ফেলে এবং আমাদের ডেটা বিল বাড়িয়ে দেয়। এই জাতীয় অ্যাপ্লিকেশন থেকে আপনার অ্যান্ড্রয়েডকে মুক্তি দিয়ে গতি  বাড়িয়ে নেয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে। মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় এর মধ্যে এটা অন্যতম।

২. আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি আরও দ্রুত করতে অ্যাপ্লিকেশন ক্যাশ  ক্লিয়ার করুন :

কিছু অ্যাপস রয়েছে যা আপনার নিয়মিত প্রয়োজন হয় না, তবে মাঝে মধ্যে এগুলো যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। অ্যান্ড্রয়েডকে দ্রুততর করতে, সেগুলি ব্যবহার না করা অবস্থায় তারা যাতে বেশি জায়গা ব্যবহার না করে তা নিশ্চিত করার জন্য সেটিংসে এই জাতীয় অ্যাপগুলির জন্য ক্যাশ ডেটা রিমুভ করে দেওয়ার চেষ্টা করুন। মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় এর মধ্যে এটা অন্যতম উপায়।

৩. দিন বেশ কয়েকবার সিস্টেম মেমরি পরিষ্কার করুন :

বর্তমানের অ্যান্ড্রয়েডগুলো  যখনই প্রয়োজন হয় এটি নিজেরাই অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলো বন্ধ করতে পারে। তবে এটি পুরানো জিনিস। আজকাল, প্রায় বিল্ড-ইন লাঞ্চার সিস্টেম মেমরি ফ্রি করার করতে পারে। যদি আপনার ফোনে এটি না থাকে তবে আপনার একটা মেমরি ক্লিনিং অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করার কথা বিবেচনা করা উচিত। এখানে আমি এমন অ্যাপগুলির কথা বলছি না যা রিয়েল-টাইম মেমরি ক্লিন এর নামে আপনার ডিভাইসটিকে আরও স্লো করে ফেলে।

৪. যদি সম্ভব হয় তবে অ্যাপ্লিকেশনের লাইট ভার্সন ব্যবহার করুন :

Lite Verson

ফেসবুক, টুইটার, ম্যাসেঞ্জার, অপেরা-এর মতো জনপ্রিয় অ্যাপগুলির ‘লাইট’ সংস্করণও রয়েছে। এই লাইটওয়েট অ্যাপ্লিকেশনগুলি প্রায়শই  কম র‍্যামের স্মার্টফোনগুলির জন্য ডিজাইন করা হয়। অ্যাপ্লিকেশনগুলির জন্য লাইট ভার্সন ব্যবহার করা আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনের কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে দিতে পারে। এগুলি আপনার ডেটা বিলগুলিও হ্রাস করে।

৫. নিয়মিত আপনার ফোন আপডেট করুন :

অ্যান্ড্রয়েডের প্রতিটি নতুন সংস্করণ বিভিন্ন কর্মক্ষমতা উন্নতির সাথে আসে। সুতরাং, আপনার ডিভাইসটিকে আপগ্রেড মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় হতে পারে। । বিকল্পভাবে, আপনি যদি মনে করেন যে ডিভাইস নির্মাতা যদি কোন আপডেট না দেয় তাহলে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের জন্য আপনি কাস্টম রমগুলির একটি বেছে নিতে পারেন।

৬। আপনার ফোনটি খুব বেশি আপডেট করবেন না :

এটি কিছুটা অস্বাভাবিক মনে হতে পারে। ঠিক আছে, আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি আপ টু ডেট রাখাই অ্যান্ড্রয়েড টিপস এবং কৌশলগুলির মধ্যে প্রায় প্রতিটি ব্যবহারকারীর পরামর্শ দেবে। তবে সব কিছুরই একটা খারাপ দিক রয়েছে। যদি আপনার ডিভাইস স্টোরেজ কম থাকে এবং এটি কয়েক বছরের পুরনো হয় তবে এটিকে নতুন সংস্করণে আপগ্রেড করা অতিরিক্ত স্টোরেজ দখল করবে। ফলে আপনার ডিভাইস প্রয়োজনীয় এপ্লিকেশনগুলো চালাতে পারবে না। কম স্টোরেজ এর মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় এর মধ্যে এটা অন্যতম।

৭। কোনও অ্যাপ ইনস্টল করার আগে ভাবুন :

অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটে এসেছে প্রায় এক দশক হয়ে গেছে এবং প্ল্যাটফর্মের অ্যাপসের সংখ্যা এখন কয়েক মিলিয়ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে অ্যাপস এবং গেমগুলির এই অগণনীয় সংখ্যার মধ্যে সেগুলি সবই ভাল উদ্দেশ্য নিয়ে ডেভেলপারদের দ্বারা ডিজাইন করা হয়নি।

অনেক অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস নকল এবং আপনার ডিভাইসের নিয়ন্ত্রণ নিতে, মূল্যবান ডেটা চুরি করতে বানানো হয়ে থাকে। এন্টিভাইরাস কিংবা গুগল সব সময় এগুলোকে সনাক্ত করতে পারে না। উদাহরণস্বরূপ, সিস্টেমে আপডেট ম্যালওয়্যার প্লে স্টোরে তিন বছর পর সনাক্ত করা হয়েছিল।

গুগল সম্প্রতি এই জাতীয় অ্যাপ্লিকেশনগুলি স্ক্যান করার জন্য প্লে প্রটেক্ট চালু করেছে। তবে আপনি প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করার সময়ও অজানা অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করার আগে যাচাই করা উচিত।

৮। কর্মক্ষমতা উন্নত করতে আপনার এসডি কার্ড ফর্ম্যাট করুন :

BanshkhaliTimes

আপনি যদি আপনার অ্যান্ড্রয়েড ঘন ঘন ক্রাশ  করে তবে এসডি এর অন্যতম কারণ হতে পারে। এসডি কার্ড ফর্ম্যাট করা কেবল অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেম এবং বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন দ্বারা তৈরি ফাইলগুলির অপ্রয়োজনীয় জাঙ্কটি মুছে ফেলবে, ফলস্বরূপ এটি পারফরম্যান্স বাড়িয়ে তুলবে।

৯। কেবলমাত্র ওয়াইফাই-র মাধ্যমে আপডেট সেট করুন :

বিভিন্ন এপস ব্যাকগ্রাউন্ডে বিভিন্ন ফাইল আপলোড করে থাকে। এই আপলোড কিংবা ডাউনলোড আপনার ডিভাইসের স্পীড কমিয়ে দেয়। সুতরাং, ব্যাকগ্রাউন্ড ডেটা ডিজেবল করা অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসকে কিছুটা বেশি দ্রুত করতে পারে।
auto update

বিকল্পভাবে, আপনি যদি গুগলকে আপনার ডিভাইস সিঙ্ক করা থেকে বিরত রাখতে চান তবে আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে স্বয়ংক্রিয়-সিঙ্কটি বন্ধ করতে পারেন। গুগল প্লেতে অটো আপডেট অফ করুন Settings > Auto-update apps > Select Auto-update apps over WiFi only দিয়ে রাখুন।

১০।  ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ব্যবহার করুন :

আজকাল বেশিরভাগ অ্যান্ড্রয়েড ফোনগুলিতে একটি ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে। এখন, এটির ব্যবহার আপনার ডিভাইসে কোনও পারফরম্যান্স বাড়িয়ে তুলবে না। গড়ে, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরগুলি আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটিকে প্রায় 0.5 সেকেন্ডের মধ্যে আনলক করতে পারে। পিন এবং পাসওয়ার্ড এর ক্ষেত্রে সময়টি 5-8 সেকেন্ডের মধ্যে হতে পারে।

১১. আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনের মাঝে মাঝে রিস্টার্ট করুন :

এই জিনিসটি আমাদের কম্পিউটারগুলিতে প্রযোজ্য; মেশিনগুলি পুনরায় চালু করলে স্পীড বৃদ্ধি পায়। একইভাবে, এটি অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের ক্ষেত্রেও হতে পারে। আপনি যখন আপনার ডিভাইসটি পুনরায় বুট করেন, এটি অ্যান্ড্রয়েডের গতি বাড়ানোর জন্য অস্থায়ী ফাইলগুলি মুছে দেয় এবং ফোন মেমরিটি পরিষ্কার করে। মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় এর মধ্যে এটা খুব কার্যকরী।

১২। আপনার জিনিসগুলি ক্লাউডে রাখুন, আপনার ইন্টারনাল মেমটি ফ্রি করুন :

Cloud Storage

২০১৭ থেকে ক্লাউড স্টোরেজ এর প্রচলন বেড়ে গেছে। ক্লাউডের ব্যাবহার আমাদের ডাটাগুলোকে যে কোন ডিভাইস থেকে অ্যাক্সেসযোগ্য করে তুলবে। শুধু তাই নয় এর ফলে অ্যান্ড্রয়েড ফোনে মূল্যবান ইন্টারনাল মেমরি ফ্রি রাখে যা ডিভাইসে ইনস্টল থাকা অ্যাপ্লিকেশন দ্বারা ব্যবহৃত হতে পারে। মনে রাখবেন যে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটির কার্য সম্পাদনে অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

১৩। হোম স্ক্রিনে খুব বেশি জিনিস রাখবেন না :

লাইভ ওয়ালপেপার এবং বিভিন্ন উইজেট সহ আপনার অ্যান্ড্রয়েড হোম স্ক্রিনটি খুব সুন্দর দেখাচ্ছে। তবে এই সমস্ত জিনিসগুলি হার্ডওয়ারে অতিরিক্ত বোঝা চাপায় এবং ডিভাইসের কার্যকারিতা প্রভাবিত করে। সোজা বাংলায় এগুলো আপনার ডিভাইসকে স্লো করে ফেলে।

কখনও কখনও, আপনি কোনও ভারী অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে বা গেমস খেলতে গেলে দেখবেন আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসটি হোম স্ক্রিনের এসব গেজেড লোড করতে গিয়ে স্লো হয়ে যাচ্ছে।

আপনার হোম স্ক্রিনটি যতটা সম্ভব পরিষ্কার রাখুন। এতে প্রতিবার আপনি ডিভাইস আনলক করার পর হোম স্ক্রিন লোড করতে গিয়ে আপনার মোবাইল হাফিয়ে উঠবে না।  ফলে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটিকে আরও দ্রুত কাজ করতে পারবে। মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় এর মধ্যে এটা অন্যতম।

১৪। ইন্টারনাল মেমরিতে অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করুন :

ইন্টারনাল মেমরিটিতে অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করতে বলার কারণ হ’ল এটি বেশিরভাগ এসডি কার্ডের চেয়ে যথেষ্ট দ্রুত এবং নির্ভরযোগ্য। আইফোন এবং পিক্সেলের মতো প্রিমিয়াম স্মার্টফোনের কোনও এসডি কার্ড স্লট না থাকার কারণ সম্ভবত এটিই।

আজকাল, সানডিস্কের মতো স্টোরেজ সংস্থাগুলি এমন এসডি কার্ড তৈরিতে কাজ করছে যা ইন্টারনাল মেমরির সাথে মেলে এবং অ্যান্ড্রয়েডকে আরও দ্রুত এবং আরও দক্ষ করে তুলতে পারে। তবুও, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইন্টারনাল মেমরি ভাল।

১৫। এনিমেশন বন্ধ করুন :

Developer Option

সেটিংস থেকে ডেভলপার অপশনে গিয়ে বিল্ড নাম্বারের উপর ৫বার ক্লিক করলে ডেভলপার মুড এক্টিভ হবে। এরপর আপনি ডিভাইসে অ্যানিমেশন ডিজেবল করতে পারেন। Window animation scale, Transition animation scale, Animator duration অফ করুন।

 

এই ছিলো আপনার মোবাইলকে দ্রুত করার উপায় নিয়ে কয়েকটি অ্যান্ড্রয়েড টিপস এবং ট্রিকস। আশাকরি এগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার ডিভাইসকে কিছুটা হলেও স্পীডী করতে সক্ষম হবেন। এই পোস্টটি কেমন লেগেছে নীচে মন্তব্য আমাদের জানান। ধন্যবাদ।

 

Mobile Banking Hack এর ৫টি পদ্ধতি

 

 

You May Also Like

81 thoughts on “মোবাইলকে দ্রুত করার উপায়

  1. Pingback: Bluebox Stories

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.