মুরশিদুল আলম চৌধুরীর কবিতা || কবিতার শিরোনাম নিয়ে যুদ্ধ

কবিতার শিরোনাম নিয়ে যুদ্ধ
মুরশিদুল আলম চৌধুরী

প্রসবিনীর চিৎকারে কেঁপে কেঁপে উঠছে আঁতুড়ঘর।
পিচ্ছিল পথ বেয়ে বেরিয়ে এলো কবিতা।
জলজ আবরণে মোড়া ফুটফুটে কবিতা-
রক্তাক্ত, নিরীক্ষক- নির্বাক ভ্রূক্ষেপণে।

প্রসবিনীর জরায়ুতে একটি মেয়েকবিতার
আলামত পেয়েছিল কবিতার আত্মীয়স্বজন।
ছোটখাট বিতর্ক ছিল কবিতার নাম নিয়ে।
দাদা-দাদী বলেছিল, হাসিনা বেগম;
বাবা, চাচা, ফুফুরা একাট্টা-
কবিতার নাম হবে খালেদা বানু।

কিন্তু ব্যাপারটা ঘটল এর উল্টো।
জননীর নাড়ি থেকে নাভি বিচ্ছিন্ন করে নিয়ে
স্বাধীন অস্তিত্বের ফরমান শোনাল কবিতার পুংলিঙ্গ।

শুরু হলো নতুন বিতর্ক-
‘কবিতার নাম হবে মজিব মিয়া।’
‘না, জিয়াবুল ইসলাম।’
প্রসবিনীর আর্তনাদে কেঁপে উঠল গর্ভফুল-
‘না, না, ওরা হিংসুক, ঝগড়াটে।’

এখানে প্রসবিনীর মতামতই গ্রহণযোগ্য।

বিতর্কে যোগ হল নতুন মাত্রা।
‘আবদুর রবের জেহাদি ছেলের নামে নাম হবে;
কী যেন নাম- মাহামুদ!’
‘আমরা কবিতার নাম দিতে চাই খেলারাম শামসু।’

সদ্যজাত কবিতা হাউমাউ করে কেঁদে ওঠল।
কবিতা তাহলে ওদের ঘেন্না করে!

বিছানায় রক্তের স্রোত নামিয়ে দিয়ে
লাফিয়ে ওঠল কবিতার জননী-
না, না-
ওদের আড্ডায় কলম ছোড়াছুড়ি হয়।
হাতেগোনা কজন ওরা, কইমাছের মতো-
শব্দের বুদবুদে মাথায় তোলে পুরো দেশ।

আমি কবিতার নাম দিতে চাই-
নাম দিতে চাই-
নাম দিতে চাই- ‘মানুষ’।

কবিতাকে বুকে নিয়ে প্রসবিনী ডাকল-
‘মানুষ, ও-মানুষ।’
সদ্যজাত কবিতা কী এক সম্মোহনী চোখে
জননীকে শিরোনাম বিষয়ে তার রেজামন্দি জানাল।

যেন কবিতাটি পাশব খেয়ালিপনার ওপর
এখনই ছড়িয়ে দিয়ে যাবে নিপট মনুষ্যত্ব।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.