বিশ্বনন্দিত আলেম বাঁশখালীর কৃতিসন্তান ড. মাওলানা শিব্বির আহমদের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

BanshkhaliTimes

দক্ষিণ এশিয়া উপমহাদেশের স্বনামধন্য আলেমেদ্বীন, ধর্মপ্রাণ ব্যক্তিত্ব সর্বজন পরিচিত বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামী শিক্ষার বৃহত্তম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মিশরের, কায়রো নগরীতে অবস্থিত বিখ্যাত জামিয়া আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয় মিশর Al-Azhar University) جامعة الأزهر (الشريف)‎‎ Jāmiʻat al-Azhar University ও সৌদিআরব মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এর সাবেক সিনিয়র অধ্যাপক ও দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্টান জলদী মখজনুল উলুম (বাঈঙ্গাপাড়া) বাঁশখালী বড় মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ) সাহেবের ১ম পুত্র শাইখুল ইসলাম আলহাজ্ব মরহুম মাওলানা ড. শিব্বির আহমদ (রাহঃ) এর ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।

তিনি ২০০৮ সালের ২৮ নভেম্বর শুক্রবার মদিনাতুল মোনাওয়ারা আল মিসকাত হসপিটাল চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল (৮২) বছর। তাঁকে মদিনার মসজিদে নববীতে নামাজে জানাযা শেষে জান্নাতুল বকীতে দাফন করা হয়।

তিনি জলদী মখজনুল উলুম মাদ্রাসা থেকে নাজেরা বিভাগ শেষ করে মেখল মাদ্রাসায় ভর্তি হয়। এর পর দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দাওরায়ে হাদিস ১ নং মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হয়ে পরবর্তীতে তিনি দারুল উলুম দেওবান মাদ্রাসা ও পাকিস্তানের করাচি থেকে প্রথম বিভাগসহ ডক্টরেট ডিগ্রী অর্জন করে। তিনি বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের তৎকালীন প্রত্যেক মাদ্রাসা থেকে মেধা তালিকায় শ্রেষ্ঠ ছাত্র হিসেবে জ্ঞান অর্জন করেন।

বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয় জামিয়া আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয় মিশর Al-Azhar University) جامعة الأزهر (الشريف)‎‎ Jāmiʻat al-Azhar University, পাকিস্তানের ইসলামাবাদ কায়েদ-ই-আজম বিশ্ববিদ্যালয় ও সৌদিআরব মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এর সিনিয়র অধ্যাপক হিসেবে আমৃত্যু দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

উল্লেখ্যঃ-সৌদি আরবের বাদশা ফাহাদ বিন আব্দুল্লাহ সহ অনেক সৌদি সরকারের মন্ত্রী থেকে শুরু করে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা কর্মচারী তার ছাত্র রয়েছেন।

পারিবারিক পরিচিতিঃ-

অধ্যাপক ড. মাও শিব্বির আহমদের পারিবারিক ইতিহাসঃ- ৪ ভাই ৬ বোনের মধ্যে সে সবার বড়।

১.(নিজ) অধ্যাপক ড. মাও শিব্বির আহমদ পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ) প্রতিষ্ঠাতাঃ আল জামিয়া জলদী মখজনুল উলুম (বাঈঙ্গাপাড়া) বাঁশখালী বড় মাদ্রাসা। ব্যক্তিগত জীবনে ড. মাওলানা শিব্বির আহমদ বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হননি।

২.(বোন) মোছাম্মৎ আছিয়া খাতুন পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), স্বামী মরহুম আব্দুল মান্নান সাং পালেকগ্রাম ইজ্জতনগর কালীপুর।

৩.(ভাই) মাওলানা হাসান আহমদ পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), শ্বশুরঃ পীরে কামেল হযরত মাওলানা মরহুম মুফতি নুরুল হক (রাহঃ), সাবেক (পরিচালক/মোহতামিম) আল জামিয়াতুল আরবিয়াহ পটিয়া জিরি।

৪.(বোন) মরহুমা মোছাম্মৎ খতিজা খাতুন পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), স্বামীঃ আলহাজ্ব মরহুম মাওলানা আব্দুস সোবহান (রাহঃ) সাবেক মুহাদ্দিস দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী ও সাবেক পরিচালক আল জামিয়া জলদী মখজনুল উলুম (বাঈঙ্গাপাড়া) বাঁশখালী বড় মাদ্রাসা।

৫.(বোন) মোছাম্মৎ ছলিমা খাতুন পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), স্বামীঃ সাবেক (অবঃ) সরকারী কর্মকর্তা মৃত মোঃ আবুল কাশেম লস্করপাড়া (জমশেদ মুন্সির বাড়ী) বাঁশখালী পৌরসভা চট্টগ্রাম।

৬.(বোন) মোছাম্মৎ রহিমা খাতুন পিতাঃ পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ),স্বামীঃ নুর মোহাম্মদ চাম্বল, বর্তমানে বাঁশখালী পৌরসভা ৩ নং ওয়ার্ড বাহারউল্লাহ পাড়া।

৭.(ভাই) মরহুম আলহাজ্ব মাওলানা আবু তাহের লন্ডন মসজিদুল আবরার” জামে মসজিদের 🔵খতিব🔵, আল জামিয়াতুল আরবিয়া মদিনাতুল উলুম রাউজান দেওয়ানপুর মাদ্রাসা ও সিএমবি আল মাদ্রাসাতুল ইসলামিয়া তানজিমুল উম্মাহ মাদ্রাসার সাবেক 🔳(পরিচালক🔘মোহতামিম)🔳, আনোয়ারা হাইলধর বালক-বালিকা মাদ্রাসা ও বাঁশখালী জুমহুরিয়া বালক-বালিকা মাদ্রাসার(🚯সিনিয়র শিক্ষক🚯),বাঁশখালী পৌরসভাস্থ জলদী মিয়ারবাজার জামে মসজিদের ⛔খতিব⛔ সহ অসংখ্য মসজিদ মাদ্রাসার মোহতামিম ও খতিবের দায়িত্ব পালন করেন, পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), শাশুরঃ- মরহুম কাজী মাওলানা ছলিম উল্লাহ (দা:বা:) প্রকাশ (কাজী বাড়ী) কোকদন্ডী কালীপুর।

৮.(বোন) মরহুমা মোছাম্মৎ লাইলা বেগম পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), স্বামীঃ- বাঁশখালীর সর্বজন শ্রদ্বেয় আলেম পীরে কামেল আল্লামা শাহ আব্দুল জলিল (রাহঃ) মহাপরিচালক, চাম্বল দারুল উলুম আইনুল ইসলাম মাদ্রাসা,বাঁশখালী।

৯.(ভাই) আলহাজ্ব মৌলানা ছাবের আহমদ,পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), শাশুরঃ- মরহুম হাফেজ মাওলানা মোস্তাক আহমদ (রাহ:) পশ্চিম চাম্বল মুন্সিখীল বাঁশখালী।

১০.(বোন) মোছাম্মৎ রাবেয়া খাতুন পিতাঃ-পীরে কামেল মরহুম মাওলানা মোহাম্মদ আলী (রাহঃ), স্বামীঃ বিশিষ্ট দানবীর ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি আলহাজ্ব রশিদ আহমদ আগ্রাবাদ চট্টগ্রাম।

হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার মহাপরিচালক ও হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমীর শায়খুল ইসলাম মরহুম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রাহঃ) সাহেব বলেন, ড. মাওলানা শিব্বির সাহেব আমার বন্ধু ছিলেন,২ জনে একসাথে হাটহাজারী এবং দারুল উলুম দেওবান মাদ্রাসার ছাত্র ছিলাম। দেওয়ান মাদ্রাসায় লেখা পড়া শেষ করে দেশে আসার পর হাটহাজারী মাদ্রাসার মুহতামিম হওয়ার কথা ছিল ড. মাওলানা শিব্বির সাহেবের। কিন্তু তিনি মিশর আল আজাহার বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ পেয়ে চলে যান মিশর। পরবর্তীতে সৌদি বাদশার অনুরোধক্রমে তিনি মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত হন। মৃত্যুর শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত মক্কা মসজিদুল হারাম শরীফে ছিলেন। তিনি আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া জলদী মখজনুল উলুম (বাঈঙ্গাপাড়া) বাঁশখালী বড় মাদ্রাসার দাতা ও প্রতিষ্ঠাতা সদস্য (মোতয়াল্লী), জাতীয় পত্রিকা দৈনিক মানবকন্ঠ, দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ ও দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার বাঁশখালী প্রতিনিধি তরুণ লেখক ও গবেষক সাংবাদিক মুহাম্মদ মিজান বিন তাহেরের বড় আব্বু।

আজকের দিনে সাংবাদিক মুহা. মিজান বিন তাহের তাঁর বড় আব্বুর রুহের মাগফেরাত কামনায় সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published.