BanshkhaliTimes

‘বাঁশখালী সৈকতে হবে আধুনিক পর্যটন স্পট’

কল্যাণ বড়ুয়া মুক্তা: বাঁশখালীতে সম্ভাবনাময় পর্যটন স্পট পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের প্রতিনিধি দল। গতকাল মঙ্গলবার সকালে পরিদর্শনে আসা প্রতিনিধি দলের মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের ম্যানেজার মো. জাকির হোছাইন সিকদার, ফ্রন্ট অফিস ম্যানেজার মো. আবু ইউছুফ পাটোয়ারি ও ডিউটি ফ্রি অপারেশনস্‌ ডেপুটি ম্যানেজার নাজিম উদ্দিন হায়দার। প্রতিনিধি দলের কর্মকর্তারা প্রথমে বাঁশখালীর উপকূলীয় বাহারছড়া অংশের সুদীর্ঘ সমুদ্র সৈকত পরিদর্শন করেন। এ সময় পরিদর্শনে অংশ নেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার ও বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তাজুল ইসলাম।
বাহারছড়া উপকূলীয় সুদীর্ঘ সমুদ্র চর পরিদর্শনকালে পর্যটন কর্পোরেশনের জেনারেল ম্যানেজার মো. জাকির হোছাইন সিকদার বলেন, বাহারছড়া সমুদ্র উপকূল পর্যটনের জন্য একটি আকর্ষণীয় স্থান।
এখানে সুবিশাল সমুদ্র চর ও সারি সারি ঝাউবাগান সত্যিই মনোমুগ্ধকর। এই উপকূলীয় সমুদ্র চরকে পর্যটন স্পট হিসেবে রূপায়িত করার জন্য প্রস্তাব প্রেরণ করা হবে। তিনি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে বলেন, এই সমুদ্র উপকূলকে আধুনিক পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে তুলতে প্রথমত প্রয়োজন দূর দূরান্ত থেকে আসা পর্যটকদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করা। এ জন্য ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গার চেয়ে অধিকতর সরকারি খাস জায়গার প্রয়োজন রয়েছে। তাই স্থানীয় লোকজনের সাথে পরামর্শক্রমে সরকারি খাস জায়গা চিহ্নিত করার জন্য আহবান জানান পর্যটন কর্পোরেশনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার বলেন, বাঁশখালী হচ্ছে পর্যটনের অপার সম্ভাবনাময় একটি উপজেলা। এই উপজেলায় রয়েছে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান। তার মধ্যে সুবিশাল সমুদ্র সৈকত, ইকোপার্ক ও চা-বাগান উল্লেখযোগ্য। উপকূলীয় সুবিশাল সমুদ্র সৈকতকে সরকারিভাবে পর্যটন স্পট হিসেবে ঘোষণা করা হলেও ইতিমধ্যে এই সমুদ্র উপকূলে পর্যটকদের ভিড় লেগে থাকে। সমুদ্র উপকূলকে সরকারিভাবে পর্যটন স্পট হিসেবে ঘোষণা করার জন্য সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাসও প্রদান করেন তিনি।
বাহারছড়া সমুদ্র উপকূল পরিদর্শন শেষে পর্যটন কর্পোরেশনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বাঁশখালী ইকোপার্ক ও পুকুরিয়া বৈলগাঁও চা-বাগান পরিদর্শন করেন।

BanshkhaliTimes

সূত্র: আজাদী

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published.