বাঁশখালীতে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপিত

মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের, বাঁশখালী টাইমস: ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে সারা দেশের ন্যায় বাঁশখালীতে জমকালো ভাবে উদযাপিত হল বৌদ্ধধর্মের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব। বাঁশখালী বিভিন্ন ইউনিয়নে ২৪ অক্টোবর ( বুধবার) সন্ধ্যা থেকে ব্যাপক ঢোল বাজনা বাজিয়ে বৌদ্ধ ধর্মের অন্যতম উৎসব ফানুস উড়িয়ে প্রবারণা পূর্নিমা সম্পন্ন হয়।

বুধবার দুপুর থেকে শত শত নারী পুরুষ একত্রিত হয়ে ঢোল বাজনা, বর্ণিল ফানুসের ঝলকানিসহ টানা উৎসবের মধ্য দিয়ে ব্যাপক আনন্দ উৎসাহের মধ্যে দিয়ে উৎযাপিত হল বৌদ্ধ ধর্মের অন্যতম এই প্রবারনা পূর্নিমা। সন্ধ্যা থেকে বাঁশখালীর বিভিন্ন বৌদ্ধ মন্দিরে হাজার হাজার ফানুস উত্তোলন করে তারা আনন্দ উপভোগ করতে তাকে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা।

সারা দেশের মত এই উপজেলার মধ্যে ৬ টি বৌদ্ধ মন্দিরে একই সাথে যথাক্রমে বাঁশখালীর পৌরসভা সদরস্হ জলদী ধর্মরত্ন বিহার,দক্ষিণ জলদী বিবেকারাম বিহার,বাঁশখালী কেন্দ্রীয় শীলকূপ চৈত বিহার,কাহারঘোনা মিনজিরীতলা সংঘরাজ অভয়তিষ্য পারিজাত আরাম বিহার, বাঁশখালী পূর্ব পুঁইছড়ি চন্দ্রজ্যোতি বৌদ্ধ বিহার, বাঁশখালী শীলকূপ জ্ঞানোদয় বিহার সহ সকল বৌদ্ধ মন্দিরে একযোগে আনন্দ উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে প্রবারনা পূর্নিমা পালন হচ্ছে।

সন্ধায় বাঁশখালী কেন্দ্রীয় শীলকূপ চৈত্য বিহার প্রাঙ্গনে শুভ প্রবারনা পূর্ণিমা উদযাপন সহ বিভিন্ন বৌদ্ধ মন্দির পরিদর্শন করেন বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার।

এরই ধারবাহিকতায় বর্নিল ফানুসে ঢেকে গেছে বাঁশখালীর আকাশ ,সুন্দর মনোরম এই দৃশ্য দেখতে উপজেলার প্রতিটি বৌদ্ধ বিহার জুড়ো হতে থাকে হাজার হাজার বিভিন্ন ধর্মের মানুষ।

পাশাপাশি তাদের এই প্রবারনা পূর্নিমায় পুলিশের সার্বিক নিরাপত্তা প্রধান করার জন্য বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার ও থানা (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা ওসি কামাল হোসেনের বিচক্ষণতাই আইন শৃংখলা বাহিনী বাঁশখালী প্রতিটি বৌদ্ধ মন্দিরে
প্রতি বছরের ন্যায় এবারও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে কঠোর নিরাপত্তা মধ্যে দিয়ে উৎসব সম্পন্ন হয়েছে।

কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়ায় প্রবারনা পূর্নিমা সফল ও সুন্দর ভাবে উৎযাপিত হওয়ায় বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানা অফিসার ইনচার্জকে বাঁশখালী বৌদ্ধ সমিতির পক্ষে থেকে সভাপতি রাহুল প্রিয় মহাস্থবীর ও সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক কল্যান বড়ুয়া মুক্তা ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য যে অপর দিকে আগামী ২৯ অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর পযর্ন্ত বাঁশখালী ৬ টি বৌদ্ধ মন্দিরের কটিন চীবর দানোৎসবের আয়োজন করেছে বাঁশখালী বৌদ্ধ সমিতি।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.