বাঁশখালীতে কুলীন সংসদের বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

বাঁশখালী টাইমস: ঐতিহ্যবাহী সামাজিক সংগঠন কুলীন সংসদের ৪৪তম বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও আলোচনা সভা গত শুক্রবার বাঁশখালীর চেচুরিয়াস্থ সংগঠনের স্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

Prottasha-Coaching

কুলীন সংসদের সভাপতি শাহাদাৎ হোছাইন শাহেদের সভাপতিত্বে এতে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাঁশখালী সমিতি চট্টগ্রামের সহসভাপতি আদিল মোহাম্মদ সরফরাজ চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন বাঁশখালী উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন চৌধুরী, স্থানীয় ইউপি সদস্য মিন্টু পুরোহিত মনি, এডভোকেট কেবিএম বদরুল কামাল, বৈলছড়ী নজমুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মাওলানা আহমদ হোছাইন।

সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার বিচারক ছিলেন- মোহাম্মদ মহসিন, বাঁশখালী সমাজ উন্নয়ন ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মুনির উদ্দিন, মোহাম্মদ রায়হান, বৈলছড়ী অভ্যারখীল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা কাউছার আকতার।

হুমায়ুন কবির ও আদিল মো. তৌহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় এতে সকাল থেকে ইউনিয়নভিত্তিক সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতার বিভিন্ন ইভেন্টে ৩ গ্রুপে মোট ৮১ জন শিক্ষার্থীকে সনদপত্র ও ক্রেস্টসহ আকর্ষণীয় পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ঐতিহ্যবাহী কুলীন সংসদ ১৯৭৮ সালে সমাজসেবা অধিদফতর কর্তৃক সরকারীভাবে রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত সামাজিক সংগঠন। ১৯৭৪ সালে এ সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন স্বনামধন্য সংগঠক ও সমাজসেবী মরহুম সিরাজুল কবির।

Prottasha-Coaching

You May Also Like

12 thoughts on “বাঁশখালীতে কুলীন সংসদের বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

  1. জনাব আদিল মোহাম্মদ সরফরাজ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক- আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশন, চট্টগ্রাম বিভাগ।
    যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক- কৃষকলীগ চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা। শুধু বঁশখালী সমিতির ভাইস প্রেসিডেন্ট নয়।

  2. মুল অনুষ্টান সঞ্চালনায় শুধু আদিল মোহাম্মদ তাওহিদুল ইসলাম ছিল। ওনার নামটা পরে কেনো। ওনি সংগঠনের “সাংগঠিনক সম্পাদক”।

  3. ওখানে বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন জনাব মাওলানা মোবারক আহমদ ও ছিল। যিনি প্রধান আলোচক এর পাশে দাড়ানো। যিনি একজন সমাজের মান্যগন্য ব্যক্তিত্ব। সবার নাম আসল, উনার টা কি হলো। উনি আমার জন্মদাতা পিতা। নাকি আপনার বাবাকে আপনি স্বীকার করেন না, না কোনো নিদির্ষ্ট বাবার সন্তান না। পৃথক করলেন কেনো।

  4. মোহাম্মদ রায়হান, গন্ডামারা ফাজিল মাদরাসার ইংরেজী প্রভাষক। সবার দিলেন উনার দিলেন না কেনো।

  5. জনাব মাওলানা মুনির উদ্দিন এখানে বিচারক হিসেবে ছিল। উনার যেটা দিছেন এটার চেয়ে বড় পরিচয়। উনি চট্টগ্রাম দারুল উলুম মাদরাসার আরবি প্রভাষক।

  6. হুমায়ুন কবির সংগঠনের সাংস্কৃতিক সম্পাদক। উনার আরেকটা বড় পরিচয়। উনি এম আনোয়ারুল আজিম বালিকা উচ্চ বিদ্যলয়ের বিএসসি টিচার।

  7. মুহাম্মদ মুহসিন মারকাজুচ্ছুন্নাহ ইসলামি কিডস গার্ডেনের শিক্ষক। সাবেক সফল সভাপতি কুলীন সংসদ। দুইজনের দিলেন, দুই জনের কি হলো।

  8. কুইজ প্রতিযোগিতার পুরুস্কারের কথা কি আপনার বাবা মাইক নিয়ে বলবে?

  9. বড়দের সম্মান করতে শিখুন সম্মান পেয়ে যাবেন। উপরের সব কথা আরফাত ভাইয়ের উদ্দেশ্য লেখা। আপনি এত বড় কিছু হয়ে যান নি যে। বড় রা আপনাকে সম্মান করবে। চেইন অব কমান্ড মেনে চলুন। আপনিও একদিন বড় কিছু হতে পারবেন।

  10. একটা ছোট্ট নিউজে যদি এ রকম ভুল হয় কিভাবে চেনেল টিকিয়ে রাখবেন।

  11. প্রতিহিংসা সংশোধন করুন আপনার ক্যরিয়ার বিল্ড আপ হবে।

  12. সথ্য ন্যায় বাস্তবতার পক্ষে থাকুন। আর সামনে এগিয়ে যান। নোংরামি বন্দ করুন। ক্যরিয়ার গঠন করুন। না কিচ্চু হতে পারবেন না। ফলফলের বেলায় দখতে পাবেন শুণ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.