প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে বাঁশখালীর নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

মোঃ রিয়াদুল ইসলাম রিয়াদঃ বাঁশখালীতে টানা বৃষ্টি আর পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত। কয়েকদিনের প্রবল বর্ষণ ও পাহাড় থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বাঁশখালী উপজেলার ১০ ইউনিয়নের ২৫টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ।

প্লাবিত গ্রামগুলোর কাঁচা ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, রোপা আমন ধানের বীজতলা, সবজি, পুকুরের মাছ পানিতে তলিয়ে গেছে। আবহাওয়া অপরিবর্তিত থাকলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটবে বলে আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।

গত সোমবার শুরু হয় অবিরাম বর্ষণ। সেইসঙ্গে উজান থেকে নেমে আসে পাহাড়ি ঢল। এতে বাঁশখালীর পুইছড়ি, চাম্বল, শীলকূপ, শেখেরখীল, গন্ডামারা, সরল, পৌরসভা, বৈলছড়ি, কালিপুর, সাধনপুর ও পুকরিয়া ইউনিয়নের ২৫টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। প্লাবিত গ্রামের রাস্তাঘাট, আমন ধানের বীজতলা ও সবজি ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে শতাধিক পুকুরের মাছ। এতে গৃহপালিত পশু নিয়ে আক্রান্তরা পড়েছেন চরম বিপাকে। বাড়িতে পানি ওঠায় চুলা জ্বালাতে পারছে না প্লাবিত এলাকার মানুষ। শুকনো খাবার খেয়েই দিন পার করছেন তারা।

পুইছড়ি ইউনিয়নের শামিম উল্লাহ আদিল জানান, বন্যার পানিতে তাদের এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। তলিয়ে গেছে আমন ধানের বীজতলাসহ সবজি ক্ষেত। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি আরো অবনতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা।

তবে বন্যার পানি দ্রুত নেমে গেলে কৃষি ক্ষেত্রে তেমন ক্ষতি হবে না বলে জানান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা। তিনি বলেন, কিছু বীজতলা ও সবজি ক্ষেত ডুবে গেছে। বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি পরিদর্শনে কৃষি অফিসের সবাই তৎপর।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.