টোল বন্ধ: এবার পরিবহণ নৈরাজ্য বন্ধের দাবি

মুহাম্মদ মুহিব্বুল্লাহ ছানুবীঃ চাঁদপুর তৈলারদ্বীপ সেতুতে টোল আদায় বন্ধে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়েছে।

এর ফল আজ জুমাবার (২৬ আগস্ট) দুপুর থেকে বন্ধ করে দেয়া হয় টোল আদায়। গত ২৪ আগস্ট বিচারপতি নাঈমা হায়দার এবং বিচারপতি আবু তাহের মোহাম্মদ সাইফুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এই নিষেধাজ্ঞা জারী করেন। গতকাল দুপুর ২টা থেকে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের নির্দেশে টোল আদায় বন্ধ করা হয়।
সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ এফ হাসান আরিফ এই রিট মামলা পরিচালনা করেন।
রিট আবেদনকারী মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী জানান, যানবাহন শ্রমিকদের স্বার্থে তিনি এটা করেছেন। গতকাল সকাল থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত তৈলারদ্বীপ সেতুতে টোল আদায় চালু ছিল। দুপুর একটার দিকে তিনি এবং বাঁশখালী সিএনজি মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ তৈলারদ্বীপ সেতু এলাকায় যান। তাদের উপস্থিতে দুপুর দুইটা থেকে টোল আদায় বন্ধ হয়। টোল আদায়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের নির্দেশ ছিল জানান তিনি। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী জানান, টোল আদায় বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। টোল আদায় বন্ধ রয়েছে বলেও জানান তিনি।
দোহাজারী সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী তোফাইল মিয়া জানান, দুপুর দুইটার পর থেকে তৈলারদ্বীপ সেতুতে টোল আদায় বন্ধ রয়েছে। হাইকোর্টের আদেশের কাগজ এখনো হাতে পাননি বলেও জানান তিনি। চট্টগ্রাম কক্সবাজারের বিকল্প মহাসড়ক আনোয়ারা -বাঁশখালীর সীমান্তে অবস্থিত তৈলারদ্বীপ(সাঁঙ্গু) ব্রীজে অবশেষে হাইকোর্টে রিটের মাধ্যমে টোল আদায় বন্ধ করে দেয়া হল। দীর্ঘ আইনী লড়াইয়ের পর টোলমুক্ত হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও সাবেক সাংসদ আলহাজ্ব মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী।২০১৫ সাল থেকে প্রতিটি বাস ও সিএনজি অটোরিকশা হতে একই হারে (১৫ টাকা) টোল আদায় হয় এ সেতুতে। বিভিন্ন সময় ঠিকাদার কর্তৃক চালক হয়রানির অভিযোগও উঠে। ওই সেতুতে অতিরিক্ত টোল আদায়কে কেন্দ্র করে ঠিকাদার ও সিএনজি চলকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। পরবর্তীতে যানবাহন মালিক-শ্রমিকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে ফোনে কথাও বলেন মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী। মন্ত্রী সঙ্গে সঙ্গে ফোন করে সিএনজি অটোরিকশার টোল ৮ টাকায় নামানোর নির্দেশ দেন। এরপর টোল মুক্তির জন্য আইনি লড়াই-এ গেলে টোলবিহীন ব্রীজ আন্দোলনের এটি প্রাথমিক বিজয় হয়। বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে দায়ের করা রিট মামলার যুক্তি হচ্ছে, শঙ্খ নদীর ওপর দোহাজারি ব্রীজ , চন্দনাইশ দোহাজারী ব্রীজ সাতকানিয়ার ডলু ব্রীজ নির্মিত হয়েছে। কোনো ব্রীজে কখনোই টোল আদায় করা হয়নি। ব্যতিক্রম হয় শুধু অানোয়ারা -বাঁশখালীর তৈলারদ্বীপ ব্রীজের ক্ষেত্রে। এ ব্রীজ টি নির্মাণে কোনো বৈদেশিক ঋণ বা অনুদানের প্রয়োজন হয়নি। সম্পূর্ণ দেশিয় অর্থায়নে এ সেতুর নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়। সুতরাং স্বাভাবিক নিয়মেই এ ব্রীজটিতে কোনো টোল তোলার সুযোগ নেই।সেতুতে টোল আদায় বন্ধ হলেও ভাড়া কমানো ও যাত্রী হয়রানী বন্ধের জোর দাবী যাত্রী সাধারণের।

You May Also Like

4 thoughts on “টোল বন্ধ: এবার পরিবহণ নৈরাজ্য বন্ধের দাবি

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.