জেলা শিক্ষামেলায় বাঁশখালী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের প্রথমস্থান লাভ

বাঁশখালী টাইমস: জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহের শেষ পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা মেলা-২০১৯ এ চট্টগ্রাম জেলার ২০টি উপজেলা /থানা নিয়ে আয়োজন হয়। এই মেলা চট্টগ্রাম পিটি আই মাঠে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত হয়। এই মেলায় বাঁশখালী ১ম স্থান, রাংগুনিয়া ২য় ও কোতোয়ালী ৩য় স্থান অধিকার করে।

চট্টগ্রাম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের উদ্যোগে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে “প্রাথমিক শিক্ষার দীপ্তি, উন্নত জীবনের ভিত্তি”-এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে চট্টগ্রাম নগরীর পিটিআই মাঠে অনুষ্ঠিত দুই দিন ব্যাপী শিক্ষা মেলা সম্পন্ন হয়েছে। আজ ১৯ মার্চ ২০১৯ ইং মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় মেলার সমাপনী অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাসরিন সুলতানার সভাপতিত্বে ও সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হৃষিকেশ শীলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগের উপ-পরিচালক মো. সুলতান মিয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন পিটিআই সুপার আলহাজ্ব কামরুন নাহার ও সহকারী সুপার রওশন আরা। বক্তব্য রাখেন সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. জহির উদ্দিন চৌধুরী, প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের শিক্ষা অফিসার মো. মামুন কবির ও শিক্ষা অফিসার তাপস কুমার পাল।

শিক্ষা মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে নগরীর ও জেলার বিভিন্ন থানা/ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, সহকারী শিক্ষা অফিসার, বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা, ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষা অফিসার কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন । শেষে বিচারকদের নিরপেক্ষ বিচারে উপকরণে শিক্ষা মেলায় শ্রেষ্ঠ স্টল প্রধান/প্রতিনিধিদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের উপ-পরিচালক মো. সুলতান মিয়া। এবারের শিক্ষা মেলায় বাঁশখালী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস-প্রথম, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস-দ্বিতীয় ও নগরীর কোতোয়ালী থানা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস-তৃতীয় স্থান অর্জন করেন। এছাড়া মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রত্যেক শিক্ষা-থানা কর্মকর্তাদের মাঝে সান্ত¦না পুরস্কার দেয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিকে সম্মাননা উপহার তুলে দেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাসরিন সুলতানা। সমাপনী অনুষ্ঠানের পূর্বে বিভিন্ন থানা/উপজেলা প্রাথমিক অফিসের পরিচালনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ।

শিক্ষা মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগের উপ-পরিচালক মো. সুলতানা বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা সকল আনুষ্ঠানিক শিক্ষার মূল ভিত্তি। দক্ষ মানব সম্পদ গঠনে এ শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতার কারণে শিশু বান্ধব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শতভাগ ভর্তি নিশ্চিতকরণ, প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি চালুকরণ, শিক্ষাক্ষেত্রে লিঙ্গ সমতাসহ সর্বস্তরে শিক্ষা সমঅধিকার নিশ্চিতকরণ, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদেরকে বিদ্যালয়ে ভর্তি ও শিক্ষা লাভের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। সরকারের এ ধারা অব্যাহত থাকলে শিক্ষার মান আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে। দেশের কোন শিশু যাতে প্রাথমিক শিক্ষা থেকে ঝড়ে না পড়ে সে লক্ষ্যে যুগোপযোগী পদক্ষেপও নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদেরকে নীতি-নৈতিকতাও শিখাতে হবে। ক্লাসে উপকরণ দিয়ে শিক্ষার্থীদেরকে বাস্তবমুখী পাঠদানে প্রত্যেক শিক্ষককে আন্তরিক হতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.