চাম্বল বাজারে ৪ দোকান পুড়ে ছাঁই, ক্ষয়ক্ষতি প্রায় অর্ধকোটি!

মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের: উপজেলার চাম্বল বাজারের উত্তর পাশে পিএবি প্রধান সড়ক সংলগ্ন সড়কের পশ্চিমাংশে ৪ টি দোকান অগ্নিকান্ডে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। গতকাল সোমবার রাতে সংঘটিত এ অগ্নিকান্ডে ৪ দোকানের মালামাল সম্পূর্ণ পুড়ে গিয়ে অর্ধকোটি টাকার অধিক পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিক সূত্রে জানা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে স্থানীয় কামরুল সাওদাগরের মালিকানাধীন রাইসমিলের (তুষ থেকে লাকড়ি তৈরির কারখানা) বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়। আগুন মুহূর্তের মধ্যে পার্শ্ববর্তী আরো ৪টি দোকানে ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা আগুন নেভাতে চেষ্টা চালায়। কিন্তু আগুনের লেলিহান শিখা তীব্রতর হওয়ায় মুহূর্তের মধ্যে ৪ দোকানের মালামাল পুড়ড়ে সম্পূর্ণ ভষ্মীভূত হয়ে যায়। অগ্নিকান্ডে রাইসমিলের বিভিন্ন মালামাল পুড়ে যায়, যার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৩০ লক্ষাধিক টাকা, আব্দুর রহিম সওদাগরের সিএনজি অটো পার্টসের দোকানের বিভিন্ন মালামাল ও যন্ত্রাংশসহ পুড়ে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা, আব্দুস শুক্কুরের সিএনজি মেরামতের দোকানের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ সহ পুড়ে ৪ লক্ষাধিক টাকা, আব্দুল মালেক সাওদাগরের স্ক্র্যাপের দোকানের প্রায় ১৫ লক্ষাধিক টাকা, চন্দন মিস্ত্রির সিএনজি মেরামতের মেশিনারী যন্ত্রাংশ প্রায় ২ লক্ষ টাকাসহ পার্শবর্তী আরো ৪টি দোকানের ফটক অগ্নিকান্ডে পুড়ে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ব্যবসায়ীরা।

এদিকে স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হলে খবর পেয়ে অগ্নিকান্ড সংঘটিত হওয়ার ১৫ মিনিট পর বাঁশখালী ফায়ার সার্ভিস ও পরে চকরিয়া পেকুয়া ফায়ার সার্ভিস এসে যৌথভাবে তারা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অাগুন নিয়ন্ত্রণে স্থানীয়দের অনেকে আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের একজন দোকান মালিক আব্দুর রহিম সওদাগরের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ‘সোমবার মধ্য রাতে অগ্নিকান্ড সংঘটিত হলে মুহূর্তের মধ্যে আগুন সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। এতে ৪টি দোকানসহ আরো ৪টি দোকানফটক পুড়ে ছাই হয়ে যায়। অগ্নিকান্ডে আমাদের পরিবার চালানোর একমাত্র আয়ের স্থানগুলি পুড়ে যাওয়ায় চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি আমরা।’ ঘুরে দাঁড়াবার মতো আমাদের আর কোনও সহায় সম্বল নাই বললেন, গ্যারেজ দোকানদার আব্দুস শুক্কুর।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন চাম্বল ইউপির চেয়ারম্যান মো. মুজিবুল হক চৌধুরী। তিনি বলেন, ফায়ার সার্ভিস যথাসময়ে না এলে চাম্বলের পুরো বাজার অগ্নিকান্ডে ভষ্মীভূত হয়ে যেত। এখানেও ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান তিনি।

বাঁশখালী ফায়ার সার্ভিসের টিম প্রধান উত্তম কুমার চৌধুরী জানান, ঘটনা সংঘটিত হওয়ার ১৫ মিনিট পর খবর পেলে আমার টিম দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে সম্পূর্ণ আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন।

Prottasha Coaching

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.