চাম্বলে দেবরের চাপাতির আঘাতে ভাবীসহ আহত ৩

মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের: বাঁশখালী চাম্বল এলাকায় দেবরের চাপাতির আঘাতে ভাবি মোরশেদা বেগম (৪৫) গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন। ঘটনাটি ঘটেছে চাম্বল ইউনিয়নের পশ্চিম চাম্বল ২ নং ওয়ার্ডের পাতিলা বিবির পাড়া গ্রামে। এ ঘটনায় বাঁশখালী থানায় ৬ জনকে আসামি করে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে ।

মামলা এবং পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, একই পরিবারে বসবাসের সুবাদে দীর্ঘ দিন যাবৎ দেবর ঘর বাড়িতে থাকলে সে অবৈধ ব্যবসা বানিজ্যর সাথে জড়িয়ে পড়লে আমি বিষয়টি আমার স্বামী এবং ননদের অবহিত করে। পরবর্তীতে তাকে তার ভাই ও বোনেরা অবৈধ ব্যবসা বানিজ্য না করার জন্য বারণ করিলে সে ক্ষিপ্ত হয়। একপযর্য়ে মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) দোস্ত মোহাম্মদ প্রকাশ মিন্টু এবং তার কয়েকজন সহযোগী আব্দুস সবুর সহ সংঘবদ্ধভাবে ভাবির ঘরে ঢুকে বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যাওয়ার সময় ভাবি তাকে বাঁধা প্রধান করিলে তাকে চাপাতি নিয়ে কোপাতে থাকে। তার চিৎকারে স্বামী হেফাজুল ইসলাম ও ননদ শাহানুর বেগম এগিয়ে এলে তাদের কে মারধর ও হামলা করে সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পরে প্রতিবেশীরা তাদের কে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বাঁশখালী হাসপাতালে ভর্তি করে।

বাঁশখালী হাসপাতালে জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ সনজয় নাথ জানান,
চাম্বল এলাকায় মারধরের ঘটনায় তিন জনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে মোরশেদা বেগম নামে এক গৃহবধূর মাথায় ৩টি সেলাই দিতে হয়েছে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত প্রাপ্ত হয়।

এ ব্যাপারে গৃহবধূর স্বামী হেফাজুল ইসলাম জানান, তার ছোট ভাই দোস্ত মোহাম্মদ প্রকাশ মিন্টু মাদকাসক্ত এবং বখাটে। সে বর্তমানে ইয়াবা বিক্রয় সহ অবৈধ ব্যবসার বানিজ্যর সঙ্গে জড়িত। তার এসব ব্যবসা বন্ধ করার জন্য বলিলে সে আমি, আমার স্ত্রী ও বোনদের উপর হামলা করে। পূর্বে ও তার বিরুদ্ধে অপহরন,মারধর সহ ৩ টি মামলা রয়েছে।

অভিযুক্ত দোস্ত মোহাম্মদ জানান, আমি দীর্ঘ দিন যাবৎ চট্টগ্রাম শহরে বসবাস করে আসছিলাম,কিছু দিন পূর্বে নিজে বাড়ি ফিরে আসলে তারা আমার প্রাপ্য জায়গা-জমি বুঝিয়ে দিচ্ছে না,আমি আমার প্রাপ্য জায়গা-জমি তাদের কাছ থেকে খোঁজলে তাদের সাথে আমার দ্বন্ধ শুরু হয়।পরে আমি তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছি,তাই তারা আমার ছেলে মেয়েদের কে মারধর করেছে। এখন আমরা মারধর করেছি বলে মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছেন তারা।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.