ক্যান্সার আক্রান্ত তরুণ ব্যাংকার ফারুক আবদুল্লাহ টিটুর ইন্তেকাল

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঁশখালী টাইমস: মাত্র মাসখানেকের ব্যবধানে মরণঘাতী ক্যান্সারে জীবনপ্রদীপ নিভে গেল তরুণ ব্যাংকার ফারুক আবদুল্লাহ টিটুর। আজ রাত দেড়টায় নগরীর পার্কভিউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজেউন।

ফারুক আবদুল্লাহ টিটু পেশায় একজন ব্যাংকার। তিনি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের রোহানপুর ব্রাঞ্চে এসিস্ট্যান্ট অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। মাত্র আট মাস আগে তিনি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাঁর বাড়ি বাঁশখালীর বাহারচরা গ্রামে। তিনি পশু চিকিৎসক ডা. দেলাওয়ার হোসেনের পুত্র। মৃত্যুকালে তিনি মা-বাবা, স্ত্রী, দুই ভাই-দুই বোনসহ অসংখ্য আত্মীয়-বন্ধুস্বজন রেখে যান। তাঁর বয়স হয়েছিল মাত্র ২৯। তিনি ২০০৭ সালে বাহারচরা রত্নপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, পশ্চিম বাঁশখালী উপকূলীয় ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি শেষ করে হাজেরাতজু ডিগ্রী কলেজ ও কমার্স কলেজ থেকে যথাক্রমে অনার্স-মাস্টার্স শেষ করেন।
ইসলামী ব্যাংকের আগে তিনি মমতা এনজিও’র অডিট অফিসার ছিলেন।

উল্লেখ্য, তিনি গত ঈদুল আযহার ছুটিতে বাড়িতে আসলে অসুস্থতা ধরা পড়ে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার ধারাবাহিকতার পরে তাঁর শরীরে ব্লাড ক্যান্সার শনাক্ত হয়। ডাক্তারের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে নেয়ার প্রস্তুতি চলছিল। চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য আনুমানিক বাজেট ২৫/৩০ লক্ষ টাকা সংগ্রহে অনলাইন-অফলাইনে পুরোদমে মাঠে নেমে পড়েছিলেন তাঁর সহপাঠী, বন্ধু-স্বজন ও প্রবাসীরা। সবার সকল প্রচেষ্টাকে পাশ কাটিয়ে চিরতরে বিদায় নিলেন মেধাবী তরুণ, সম্ভাবনাময়ী ব্যাংকার ফারুক আব্দুল্লাহ টিটু। তাঁর মৃত্যু সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার পর সর্বত্র শোক বিরাজ করছে।
এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জানাজার সময়সূচি জানা যায়নি।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published.