করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বাঁশখালী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সচেতনতামূলক মাস্ক বিতরণ

মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের: করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বাঁশখালী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে যুব রেডক্রিসেন্ট দলের পক্ষ থেকে রবিবার (২ ফেব্রুয়ারী) সকালে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনোতোষ দাশ,সিনিয়র শিক্ষক অঞ্জন চক্রবর্তী, মহাবুল আলম, যুব রেডক্রিসেন্ট দল ১০ ম শ্রেনীর ছাত্রী নাঈমা ইসলাম,ফারিহা আফরিন মাইদা,অন্নি মহুরি, শ্রাবন্তি সিকদার, নসিবা নুর সিলমা নেতৃত্বে একটি ইউনিট বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রেহেনা আক্তার কাজেমী,উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ আব্দুর রহিম,ডাঃ শাহেদ চৌধুরী ,
সমাজসেবা অফিসার অনিক রায়, বাঁশখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ বিদ্যালয়ের স্কুল ছাত্রী, নির্মান শ্রমিক,রাস্তার বিভিন্ন পথচারীদের মাঝে মাক্স বিতরন করা হয়।

উল্লেখ্য, চীনে নতুন করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বাড়ছে আতঙ্ক। গত ডিসেম্বর থেকেই এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে চীনে। এটি অনেকটা সার্স ভাইরাসের মতো মানুষের মৃত্যু ডেকে আনছে।
ভাইরাসটি নিউমোনিয়া ধরনের অসুস্থতা সৃষ্টি করে এবং তারপর অ্যান্টিবায়োটিক চিকিৎসায় সাড়া দেয় না। ভাইরাসটিতে সংক্রমণের লক্ষণ হচ্ছে সর্দি, কাশি, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা। এছাড়া জ্বর ও মাথাব্যথাও হতে পারে। এসব সমস্যা কয়েকদিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। দুর্বল ইমিউন সিস্টেমের মানুষ, বয়স্ক ও শিশুদের এই ভাইরাসে নিউমোনিয়া বা ব্রঙ্কাইটিসের মতো শ্বাসনালীর সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে বিপদ এ কারণে যে, এর নির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই। বিশেরভাগ ক্ষেত্রে উপসর্গগুলো আপনা আপনি চলে যায়। চিকিৎসকরা ব্যথা বা জ্বরের ওষুধ দিয়ে উপসর্গগুলো থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারেন। গরম পানিতে গোসল গলাব্যথা বা কাশি থেকে মুক্তি দিতে সহায়ক হতে পারে। এর প্রতিরোধের একমাত্র উপায় হলো, যারা ইতোমধ্যেই আক্রান্ত হয়েছেন বা এই ভাইরাস বহন করছেন তাদের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলা। হাত দিয়ে নাক-মুখ স্পর্শ না করা, সবসময় সাবান দিয়ে হাতে ধোয়া; অন্তত ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে। সচেতন থাকাটাই মূল বিষয়। হাঁচি ও কাশি দেওয়ার সময় নাক ও মুখ ঢেকে রাখুন। বাইরে বেরোনোর সময় মাস্ক ব্যবহার করুন। পোষা প্রাণি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে এবং সংক্রমণ তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। অনেক সময় এটি মানুষের জন্যও প্রাণঘাতী রোগের কারণ হতে পারে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.