এবারও হজে যেতে পারেননি চেয়ারম্যান লেয়াকত আলী

ছোটন আজাদ: সৌদি দূতাবাস থেকে ভিসা পাবার পরও হজে যেতে পারলেন না গণ্ডামারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লেয়াকত আলী। কোনো ভিসা বা এজেন্সি জটিলতার কারণে নয়, সরকারের রোষানলে পড়ে হজে যেতে পারেননি বলে তিনি দাবি করেন। এর আগে তিনি গত রমজানে ওমরাহ পালনে সৌদি আরব যেতে চেয়েও পারেননি। তারও আগে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জেতার পর ভারতের আজমিরে যেয়ারত করতে চাইলে তখনও তাকে যেতে দেওয়া হয়নি। একইভাবে গতবছর হজে যেতে চাইলেও তার নামে মামলা থাকার কারণে যেতে দেওয়া হয়নি।

এব্যাপারে জানতে চাইলে লেয়াকত আলী জানান, সরকার ফরজ হজ করতে যেতে দিলো না আমাকে মামলা থাকার অজুহাতে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দেশে বহু মন্ত্রী, এমপি, ব্যবসায়ী ও চেয়ারম্যানের নামে মামলা থাকার পরও তারা ক’দিন পরপর বিদেশ সফর করছে। আর আমাকে ফরজ হজ করতেও যেতে দিচ্ছে না সরকার।

উল্লেখ্য, ভিসা পেয়েও এ বছর ৪৯৩ জন হজে যেতে পারলেন না। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও সৌদি এয়ারলাইন্স এবার হজযাত্রী পরিবহন করে। গতকাল উভয় এয়ারলাইনসের হজ ফ্লাইটের সমাপ্তি হয়েছে। শেষ দিন পর্যন্ত বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ৬৪ হাজার ৮৭৩ জন এবং সৌদি এয়ারলাইনস ৬২ হাজার ২৩০ জনসহ মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১০৩ জনকে সৌদি আরব পাঠিয়েছে। হজ ফ্লাইটের সমাপ্তির দিনেও হজে যেতে পারেননি ৯৪ জন। হজ এজেন্সি মালিক ও দালালের দ্বারা তারা প্রতারিত হয়ে রাজধানীর হজক্যাম্পে গতকালও অবস্থান করেন। কিন্তু হজক্যাম্পে তাদের দেখভালের মতো দায়িত্বশীল কোনো কর্মকর্তাও সেখানে ছিলেন না।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.