আনোয়ারা বোয়ালীয়া মাদরাসায় হাটহাজারীর পরিদর্শক টীমের জরুরী সভা

আল জামিয়া আল ইসলামিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক ও আল হাইআতুল উলয়া লিল-জামি-আতিল কাওমীয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (দাঃবা) এর গঠিত পরিদর্শক টিমের প্রধান, হাটহাজারী মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিছ আল্লামা শেখ আহমদ (দাঃবা) এর সভাপতিত্বে আনোয়ারাস্থ বোয়ালীয়া ইসলামীয়া (বড়) মাদরাসায় সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে এক জরুরী সভা মাদ্রাসা শিক্ষক মিলনায়তন হল রুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উক্ত আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন আল জামিয়া আল ইসলামিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিছ মাও ফোরকান , সহকারী শিক্ষা পরিচালক মাও আনাছ মাদানী, মাওঃ মুহাম্মদ আলমগীর, মাও মুহাম্মদ জুনাইদ, বাঁশখালীসস্থ বায়তুল ইরফান আদর্শ মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক কাজী মুহাম্মদ মনছুরুল হক, আনোয়ারা বোয়ালীয়া বড় মাদরাসার শিক্ষক মাও মুহাম্মদ মুফিজুর রহমান, কারী আবু তাহের, হাফেজ এজাজুল হক, মাও জমির উদ্দিন, মাও রেজাউল আজিম, মাও মাহমুদুল হাছান, মাও নজরুল ইসলাম, মাও ছালেহ আহমদ, হাফেজ আব্দুল মালেক, হাফেজ আব্দুল লতিফ, হাফেজ খলিলুর রহমান, মাও কেফায়েত উল্লাহ্সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, উক্ত মমাদ্রাসাটি আল্লামা তুরাব উদ্দিন ছাহেব (রহঃ) দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসা থেকে কুরআন, হাদিস ও ফিকহ শাস্ত্রের উপর পান্ডিত্য অর্জন করে আধ্যাত্মিকতার ছবক নিয়ে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রসার শিক্ষকতা করেন এবং তৎকালীন হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতাগণের পরামর্শক্রমে তাহার নিজ গ্রাম বোয়ালিয়ায় ১৯০২ সালে প্রতিষ্ঠা করেন বোয়ালিয়া ইসলামিয়া বড় মাদ্রাসা।

এটি বাংলাদেশের কওমী মাদ্রাসাগুলোর মধ্য দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠান নামে বেশ পরিচিতি লাভ করে। শুরুতেই যশখ্যাতি নিয়েই এই মাদ্রাসার পদচারণা শুরু হয় । এবং উনার জীবদ্দশায় ১৯৫১ সালে এই মাদ্রাসার দায়িত্ব অর্পণ করেন তাঁহার ছাত্র আল্লামা আবুল খায়ের (রহঃ) এর কাছে। তিনিও দীর্ঘদিন এই মাদ্রাসার দায়িত্ব বেশ সুনাম ও দক্ষতার সহিত পরিচালনা করেন।

তিনি ১৯৮৬ সালে অত্র মাদ্রাসার দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় সৌদি আরবে মাদ্রাসার তহবিল উত্তোলনে গমন করেন। এবং সেখানেই সড়ক দূর্ঘটনায় ইন্তেকাল করেন। তাঁকে সেখানেই দাফন করা হয়। এমতাবস্থায় মাদ্রাসার মুহতামিমের পদ শূণ্য হয়ে পড়ে।

পরবর্তীতে শূরা কমিটি ও এলাকার মুরুব্বীগণের আলোচনার ফলশ্রুতিতে আল্লামা আবুল খায়ের (রহঃ)’র বড় সন্তান মৌলানা মোহাম্মদ ছালেহ’র কাছে মাদ্রাসার সমস্ত দায়িত্ব হস্তান্তর করা হয়। তিনিও অত্যন্ত সুচারুরূপে এবং দক্ষতার সহিত মাদ্রাসার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

এসময় বোয়ালীয়া মাদরাসার বিভিন্ন সমস্যার সংকট নিরসন, মাদরাসা পরিচালনা কার্যক্রম, পড়ালেখার মানোন্নয়ন, মাদরাসার অবকাঠামোগত উন্নয়ন সংক্রান্ত প্রাথমিক আলোচনা সম্পন্ন হয়।

প্রেসরিলিজ

১১.০২.১৯

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.